‘নৌকার বিপক্ষে এক ভোট পড়লে লা`শ পড়বে পাঁচটি’

নৌকার বিপক্ষে এক ভোট পড়লে পাঁচ লা`শ পড়বে বলে হু`মকি দিয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার নবীনগর পশ্চিম ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি। তিনি ঐ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ফিরোজ মিয়ার সমর্থক।লাপাং স্কুল মাঠে বৃহস্পতিবার রাতে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থনে অনুষ্ঠিত সভায় এই হু`মকি দেন ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি আশরাফুল আলম। বক্তব্যটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

আশরাফুল তার বক্তব্যে বলেন, প্রশাসন কাজ করুক বা না করুক, নৌকার বি`রুদ্ধে যদি একটা ভোটও কাটে, ঐ ওয়ার্ডে পাঁচটা লা`শ পড়বে ইনশাআল্লাহ। নৌকার বিপক্ষে কেউ ভোট কাটতে পারবে না। আমরা শক্ত হাতে প্রতিহত করব।’এ বিষয়ে জানতে আশরাফুল আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমাদের সভা চলার সময় পাশের চিত্রী গ্রামে নৌকার বিপক্ষে ভোট কাটা হবে বলে খবর আসে। তখন আবেগ ধরে রাখতে পারিনি। দয়া করে এটি নিয়ে নিউজ কইরেন না।

সন্তানদের পাকা ঘরে ঠাঁই হয়নি বৃদ্ধার, পাঁচ বছর পর উদ্ধারসন্তানদের পাকা ঘরে ঠাঁই হয়নি বৃদ্ধার, পাঁচ বছর পর উদ্ধার সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাজী মোর্শেদ হোসেন কামাল। যোগাযোগের চেষ্টা করেও মোবাইল ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন নূর আলম। তিনি বলেন, ‘আমাকে ও আমার সমর্থকদের প্রতিনিয়ত হু`মকি দিচ্ছে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর লোকজন। তারা এলাকায় অ`স্ত্র নিয়ে ঘো`রাফেরা করে। আমরা সবাই আ`তঙ্কে আছি। আমরা চাই নিরপেক্ষ নির্বাচন হোক, জনগণ ভোট দিতে পারুক। ভোটাররা তাদের পছন্দের প্রার্থীকে যেন নির্বাচিত করতে পারে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) মোল্লা মোহাম্মদ শাহীন বলেন, ‘এ ধরনের কোনো খবর শুনিনি। যদি এমন বক্তব্য কেউ দিয়ে থাকে তাহলে তার বি`রুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ভয়ভীতি দেখিয়ে কিংবা বল প্রয়োগ করে ভোট নিয়ে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই।’আগামী ২৮ নভেম্বর নবীনগর পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদের ভোট। এতে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন চার জন।

Check Also

২ সন্তান মিলে মাকে হত্যা, প্রচার করেন আত্মহত্যা

ফুলজান ভানুর (৭০) স্বামী মারা গেছেন ২৮ বছর আগে। ছেলেদের সঙ্গেই থাকতেন। দুই মাস আগে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *