প্রেমের বিয়ে, ১৮ বছরের সংসার; শিমুর রয়েছে দুটি সন্তান

পারিবারিক কলহের জেরে অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম শিমু (৪১) কে হত্যা করা হয়েছে এমনটা পুলিশ দাবি করলেও মানতে পারছে না নিহতের ছোট বোন ফাতেমা নিশা।এ ঘটনায় সোমবার রাতেই সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে নিহতের স্বামী শাখাওয়াত আলী নোবেল ও তার বাল্যবন্ধু ফরহাদকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে পুলিশ। পরে মঙ্গলবার দুপুরে নিহত বড় ভাই হারুনুর রশিদ কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় বোনজামাই ও তার বন্ধুর নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় মামলা করতে এসে নিহত ছোট বোন ফাতেমা নিশা সাংবাদিকদের জানান, রবিবার সকাল ৯টায় শিমু বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হলে রাত ১১টায় কলাবাগান থানায় একটি জিডি করা হয়। এরপর থেকে অনেক খোঁজাখুজি করেও তাকে না পেয়ে সোমবার সন্ধ্যায় মিটফোর্ড হাসপাতালের মর্গে গিয়ে আমার ভাই শিমুর লাশ শনাক্ত করে।

পুলিশ বলেছে আমার বোন জামাই স্বীকার করেছে যে, সে আমার বোনকে খুন করেছে।১৮ বছরের তাদের সংসার, সেই সংসারে দুটি ছেলে মেয়ে রয়েছে। প্রেমের সম্পর্কের মাধ্যমে বিয়ে হলেও কোনদিন তেমন কোন ঝগড়াঝাঁটি হয়নি। কি কারনে বোনজামাই আমার বোনকে হত্যা করতে পারে, তা আমার বুঝে আসেনা। তবে এ বিষয়ে আমি আমার বোন জামাই এর সাথে কথা বলতে চাই, কি অপরাধ ছিল আমার বোনের কেন তাকে হত্যা করা হলো।

নাকি এখানে অন্য কোনো কিছু রয়েছে, সুষ্ঠু তদন্ত চান তিনি।মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) দুপুরে ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মারুফ হাসান সরদার সংবাদ সম্মেলন করে জানান,স্ত্রী শিমু হত্যার দায় স্বীকার করেছেন তার স্বামী শাখাওয়াত আলীম নোবেল। অভিনেত্রী শিমুর লাশ গুম করতে তাকে বন্ধু ফরহাদ সহায়তা করেছেন। তিনি আরও জানায়, গত রোববার সকাল সাতটা থেকে আটটার মধ্যে যেকোনো সময় শিমুকে হত্যা করা হয়। যে গাড়ি ব্যবহার করে শিমুর লাশ গুমের চেষ্টা করা হয়েছে সে গাড়ি জব্দ সহ অন্যান্য আলামত সংগ্রহ করেছে পুলিশ।উল্লেখ্য, গতকাল সোমবার সকাল ৯টায় কেরানীগঞ্জ হযরতপুর ব্রিজের পাশে বস্তাবন্দি অবস্থায় অজ্ঞাত হিসেবে লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ।

পরে হাসপাতালের মর্গে গিয়ে নিহতের ভাই শহীদুল ইসলাম খোকন চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমুর লাশ সনাক্ত করেন। ১৯৯৮ সালে কাজী হায়াত পরিচালিত ‘ বর্তমান ’ সিনেমা দিয়ে রুপালি পর্দায় তার অভিষেক হয় শিমুর। অভিনয়ের পাশাপাশি প্রযোজক হিসেবেও তার পরিচিতি ছিল শিল্পী সমাজে।রাইমা ইসলাম শিমু চলচ্চিত্র ও নাটকের ক্যারিয়ার দুই দশকেরও বেশি সময় পার করেছেন । তিনি বাংলাদেশের অনেক গুনী পরিচালকের সাথে কাজ করেছে । মরহুম চাষী নজরুল ইসলাম , পরিচালক দেলোয়ার জাহান ঝন্টু , এ জে রানা , শরিফুদ্দিন খান দ্বীপু , এনায়েত করিম , শবনম পারভীন ছাড়াও বহু গুনী লোকের সাথে কাজ করেছেন তিনি।

Check Also

ফের সংসার ভাঙছে মাহির, স্ট্যাটাস ঘিরে তুমুল সমলোচনা

ঢালিউড পাড়ার আলোচিত ও সমালোচিত চিত্র নায়িকা মাহিয়া মাহি। সম্প্রতি তৃতীয় বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে সে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *