রাজধানীতে ই-কমার্স প্রতিষ্টান ই-অরেঞ্জ গ্রাহকদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ

ই-কমার্স প্রতিষ্টান ই-অরেঞ্জে বিনিয়োগ করা টাকা ফেরতের দাবিতে বৃহস্পতিবার সকালে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে স্মারকলিপি দিতে যাওয়ার সময় পুলিশের বাধার মুখে পড়েন গ্রাহকরা। পরে গ্রাহকরা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে প্রেস ক্লাব থেকে মৎস্যভবন গেলে পুলিশ তাদের লাঠিচার্জ করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ সময় অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

পরে ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ দুইজনকে আটক করে। মিছিলে তারা পুলিশ কর্মকর্তা সোহেল রানা ও মাশরাফির বিরুদ্ধে স্লোগান দেন। এছাড়া বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ই-কমার্সের বিরুদ্ধেও স্লোগান দেন ই-অরেঞ্জ গ্রাহকরা। এর আগে সেখানে তারা মানববন্ধন করেন। এসময় পুলিশির সাথে বাগবিতণ্ডার এক পর্যায়ে পুলিশ ও গ্রাহকদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে।

এসময় পুলিশ বিক্ষুব্ধ ই-অরেঞ্জ গ্রাহকদের ধাওয়া দিয়ে ও লাঠিপেটা করে সড়ক থেকে সরিয়ে দেয়।এর আগে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান নেন ই-অরেঞ্জ গ্রাহকরা। সেখানে ভুক্তভোগী কেন্দ্রীয় কমিটির ব্যানারে তারা মানববন্ধন করেন। এ সময় কমিটির আহ্বায়ক আফজাল হোসেন দাবি দাওয়া তুলে ধরেন।

আন্দোলনকারীরা জানান, মিছিলে পুলিশের লাঠিচার্জে তাদের প্রায় ১০ জন আহত হয়েছেন। পরে পুলিশ তাদের দুই জনকে আটক করে। এ বিষয়ে ই-অরেঞ্জ ভুক্তভোগী কেন্দ্রীয় কমিটির আহ্বায়ক আফজাল হোসেন বলেন, পুলিশ আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে হামলা করেছে। আমাদের ১০ জন এতে আহত হয়েছে। আটক করা হয়েছে কয়েকজনকে। আমরা নতুন করে কর্মসূচি দেব।

Check Also

বাবার জন্মের ৬ বছর আগে ছেলের জন্ম!

চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের বাসিন্দা মো. জামাত আলী। জাতীয় পরিচয়পত্র অনুসারে তার বর্তমান বয়স …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *