১১ বছর ধরে নিখোঁজ মেয়ে, সন্ধান মিললো পাশের বাড়িতে প্রেমিকের সঙ্গে!

দীর্ঘ ১১ বছর ধরে নিখোঁজ ছিলেন এক তরুণী। তার বাবা-মাও তাকে পাওয়ার আশা ছেড়ে দিয়েছিলেন। অথচ তখনকার সেই ১৮ বছরের তরুণী এতদিন ধরে নিজ বাড়ির পাশেই একটি রুমে বাস করছিলেন তার প্রেমিকের সঙ্গে। ভারতের কেরালা রাজ্যের পালাক্কাডে এ ঘটনা ঘটেছে বলে দেশটির সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানিয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, ভালোবেসে বাবা-মায়ের ঘর ছেড়ে মাত্র ৫০০ মিটার দূরে প্রেমিক আলিনচুবাত্তিল রহমানের বাড়িতে উঠেছিলেন ১৮ বছরের সাজিতা। সেখানেই একটি ঘরে ১১ বছর কাটিয়ে দেন সাজিতা।

তার বাবা-মা তো দূরের কথা রহমানের বাবা-মাও সাজিতার অস্তিত্ব টের পাননি। রহমানের বয়স এখন ৩৪ বছর। তিন মাস আগে নিখোঁজ হন তিনি। এরপর তার পরিবার পুলিশে অভিযোগ দায়ের করে। কিন্তু রহমানের বড় ভাই বশির মঙ্গলবার হঠাৎ তাকে এক জায়গায় দেখতে পান। তখন রহমান খুঁজতে গিয়ে সন্ধান মেলে সাজিতারও। দু’জনে একটি গ্রামে ভাড়া বাসায় থাকছিল। এরপর পুলিশ তাদের স্থানীয় একটি আদালতে হাজির করে।

কিন্তু আদালতে গিয়ে সাজিতা বলেন, তিনি রহমানের সঙ্গে থাকতে চান। এরপর তাদের একসঙ্গে থাকার অনুমতি দেন। পুলিশ জানায়, ভিন্ন ধর্মের হওয়ায় নিজেদের সম্পর্কের কথা গোপন রাখেন এই দু’জন। ২০১০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের এক রাতে ঘর ছাড়েন সাজিতা। হেঁটে পাশেই প্রেমিকের বাড়িতে গিয়ে ওঠেন তখন ১৮ বছরের এই তরুণী। এরপর পুলিশ সব জায়গায় খোঁজ করেও তার সন্ধান পেতে ব্যর্থ হয়।

ওই সময় সাজিতার কাছে কোনও মোবাইল ফোন ছিল না। পুলিশ জানায়, তারা তখন ২৪ বছর বয়সী রহমানকে কখনও সন্দেহ করেনি। কেউ তাদের সম্পর্কের ব্যাপারে জানতো না। পালিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে দুজনই নিখোঁজ হয়। কিন্তু এক্ষেত্রে এমন কিছু ঘটেনি বলে জানায় পুলিশ।

বশির বলেন, তার ভাইয়ের একটি আলাদা রুম ছিল। সেটা তালা লাগিয়ে রাখতো সে। কাউকে ঢুকতে দিতো না। রহমানের মাথা গরম, তাই বাবা-মাও তাকে ঘাটাতো না। দিনের বেলাতেও ওই ঘরে গিয়ে খাবার খেতো। আমরা যখন কাজে সবাই বাইরে থাকতাম তখন রহমান ও সাজিতা একসঙ্গে থাকতো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *